ঢাকা   ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজনীতিতে ২য় ইনিংস উর্মিলার!

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস
  • প্রকাশিত : রবিবার, নভেম্বর ১, ২০২০
  • 58 শেয়ার
উর্মিলা
বলিউড তারকা উর্মিলা মাতন্ডকার

রাজনীতির ময়দানে দ্বিতীয় ইনিংস শুরুর অপেক্ষায় বলিউড তারকা উর্মিলা মাতন্ডকার? এক কথায় এই সম্ভাবনাই নিশ্চিৎ। অঘটন না ঘটলে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই মহারাষ্ট্রের অন্যতম শাসক দল শিবসেনায় যোগ দিতে চলেছেন উর্মিলা।

ভারতে ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের কংগ্রেসের টিকিটে লড়াই করেছিলেন তিনি। তবে পরাজিত হয়ে দল ছেড়েছিলেন। এবার ফের সক্রিয় রাজনীতির ময়দানে দেখা যাবে বলিউডের এক সময়কার গ্ল্যামার গার্লকে। এমনকী, সেনার তরফে রাজ্যপালের মনোনিত সদস্য করে তাঁকে মহারাষ্ট্রের বিধান পরিষদের মনোনয়ন দানের বিষয়টিও স্থির হয়ে গিয়েছে।

দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে শিবসেনা মুখপাত্র তথা সাংসদ বলেছেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে উর্মিলা মাতন্ডকরের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি বিধান পরিষদের সদস্য হতে তৈরি বলে সম্মতি জানিয়েছেন।’

উল্লেখ্য, রাজ্যের উচ্চ কক্ষের জন্য রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারির কাছে সেনা নেতৃত্বাধীন মহা বিকাশ আগাড়ি জোটের তরফে ১২টি নামের সুপারিশ পাঠানো হবে। যার মধ্যে অন্যতম কংগ্রেস ত্যাগী উর্মিলা মাতন্ডকার।

এর আগেও উর্মিলার নাম বিধান পরিষদের জন্য উঠেছিল বলে জানা গিয়েছে। তবে, জোটসঙ্গী কংগ্রেসের হয়ে গত লোকসভা ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় সেই সময় কিছু নীতিগত প্রশ্নকে ঘিরে শিবসেনার অন্দরে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। কিন্তু, অভিনেত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে কংগ্রেস ত্যাগ করায় বিতর্কের অবসান ঘটে।

২০১৯ লোকসভায় উত্তর মুম্বই থেকে কংগ্রেসের টিকিটে ভোটে লড়েছিলেন। কিন্তু, বিজেপির গোপাল শেট্টির কাছে পরাজিত হন।

বিধান পরিষদের সদস্য হিসাবে মনোনয়নের জন্য উর্মিলা মাতন্ডকারের নামে বৃহস্পতিবারই সিলমোহর দিয়েছে মহারাষ্ট্রের ক্যাবিনেট। সূত্রের খবর শাসক জোটের তিন শরিক শিবসেনা, জাতীয়বাদী কংগ্রেস ও কংগ্রেস- চারটি করে নামের সুপারিশ করেছে। সেগুলিই রাজ্যপালের কাছে পাঠানো হবে।

উর্মিলা ছাড়াও উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে রয়েছেন সদ্য বিজেপি থেকে জাতীয়তাবাদী কংগ্রেসে যোগ দেওয়া একনাথ খাদশে ও ওই দলেরই কিষাণ সংগঠনের নেতা রাজু শেট্টি। এছাড়াও সম্ভাব্য মনোনিত প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন শিবাজিরাও গাজরে, উত্তামরাও জানকর, আনন্দ শিন্ডে। এদের মধ্যে একনাথ খাদশে ও রাজু শেট্টিকে রাজ্যের মন্ত্রীও করা হতে পারে।

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০