ঢাকা   ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
এবার সোনালী ব্যাংকের পদও হারাচ্ছেন ছাগলকাণ্ডের মতিউর এনবিআরের পদ থেকে সরানো হলো মতিউরকে আওয়ামী লীগের গৌরবের ৭৫ বছর: বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনা সিঙ্গেল লাইফে চিন্তা নেই, ঝামেলা নেই : মোনালিসা স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার-শপথ নিয়ে আ.লীগের সৃষ্টি ঈদের ১৩ দিনে পদ্মা সেতুতে টোল আদায় ৪২ কোটি টাকা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক পরিষদ সিলেট মহানগর শাখার আংশিক কমিটি ঘোষণা, অরবিন্দু সভাপতি ও নন্দলাল সম্পাদক নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী, আজ শনিবার মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠক কুষ্টিয়ায় সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে ছত্রিশ ঘন্টার আল্টিমেটাম

বিনা অনুমতিতে বিদেশি মুদ্রা স্বর্ণ দামি পাথর আনা যাবে না: অর্থ মন্ত্রণালয়।

প্রতিবেদকের নাম
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৬, ২০২৪
  • 318 শেয়ার

বিজনেস ফাইল ডেস্ক
কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া বিদেশি মুদ্রা, স্বর্ণ, দামি পাথর আনা এবং দেশের বাইরে সিকিউরিটিজ হস্তান্তর করা যাবে না। এ বিষয়ে ‘বৈদেশিক মুদ্রা ও বিনিময় ব্যবস্থাপনা আইন, ২০২৩’ শীর্ষক একটি আইনের খসড়া প্রণয়ন করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

আইনের খসড়ায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক বৈদেশিক মুদ্রা ও বৈদেশিক বিনিময় সংশ্লিষ্ট কার্যক্রমের জন্য অনুমোদিত ডিলার এবং মানি চেঞ্জার-এর অনুমোদন প্রাপ্ত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য কেউ বৈদেশিক মুদ্রা ও বৈদেশিক বিনিময় সংশ্লিষ্ট ব্যবসা করতে পারবে না। বাংলাদেশের সব ব্যক্তি; বাংলাদেশে নিবাসী সব ব্যক্তি; বাংলাদেশের বাইরে বাংলাদেশে নিবাসী যেকোনো ব্যক্তির মালিকানাধীন বা তার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত প্রতিষ্ঠান বা এর শাখা, অফিস ও এজেন্সি; বাংলাদেশে অবস্থিত রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল, সব অর্থনৈতিক অঞ্চল, হাইটেক পার্ক ও সরকার ঘোষিত কোনো বিশেষ অঞ্চলের ক্ষেত্রে এ আইন প্রযোজ্য হবে।

এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাধারণ বা বিশেষ পূর্বানুমতি ব্যতীত অনুমোদিত ডিলার ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের অভ্যন্তরে এবং বাংলাদেশে নিবাসী কোনো ব্যক্তি বাংলাদেশের ভৌগলিক সীমার বাইরের কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা ক্রয় বা ঋণ গ্রহণ করতে বা বৈদেশিক মুদ্রা বিক্রয় বা ঋণ প্রদান অথবা অনুমোদিত ডিলার নয়-এমন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বিনিময় করতে পারবে না।

অনুমোদিত ডিলার কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের পক্ষে বৈদেশিক বিনিময়ের কোনো লেনদেন করার আগে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় ঘোষণা ও তথ্য সংগ্রহ করবে-যাতে সে নিশ্চিত হতে পারে যে, লেনদেনটি এই আইনের শর্ত লঙ্ঘন করে নাই। ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান যদি আইনের বিধান মানতে অস্বীকার করে তবে অনুমোদিত ডিলার লেনদেনে অস্বীকৃতি জানাবে এবং যদি উক্ত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ঘোষণা ও তথ্য থেকে প্রতীয়মান হয় যে, তিনি আইন লঙ্ঘন করেছেন সেক্ষেত্রে বিষয়টি ৭ কর্মদিবসের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংককে অবহিত করতে হবে।

অনুমোদিত ডিলার ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তিকে শর্তাধীনে বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহ করার অনুমতি দেওয়া হলে ওই ব্যক্তি সেই উদ্দেশ্য ভিন্ন অন্য কোনো উদ্দেশ্যে সংগৃহীত বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করতে পারবেন না। আর ব্যয় করা সম্ভব না হলে নির্দেশিত সময়ের মধ্যে সংগৃহীত বৈদেশিক মুদ্রা একজন অনুমোদিত ডিলারের কাছে বিক্রি করতে হবে।

বাংলাদেশে নিবাসী কোনো ব্যক্তি কোনো অনুমোদিত ডিলারের কাছে বা তার কাছ থেকে বৈদেশিক মুদ্রা ও বিনিময় বিক্রি বা কিনতে করতে পারবেন, যদি উক্ত বিক্রয় বা ক্রয় চলতি প্রকৃতির লেনদেন হয়। তবে শর্ত থাকে যে, বাংলাদেশ ব্যাংক জাতীয় স্বার্থে চলতি ও মূলধনী হিসাবে ভারসাম্য বজায় রাখার লক্ষ্যে চলতি প্রকৃতির লেনদেনের ওপর যুক্তি সঙ্গত বিধি-নিষেধ আরোপ করতে পারবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক যদি কোনো ব্যক্তিকে শর্তাধীন বা শর্ত ব্যতিরেকে সাধারণ বা বিশেষ অব্যাহতি প্রদান না করে, তাহলে বাংলাদেশে নিবাসী কোনো ব্যক্তি বাংলাদেশের বাইরে নিবাসী কোনো ব্যক্তি বা তাহার অনুকূলে কোনো অর্থ পরিশোধ বা প্রেরণ করতে পারবে না। যদি বাংলাদেশের বাইরে কোনো ব্যক্তি পরিশোধ গ্রহণ করেছেন বা কোনো সম্পত্তির মালিক হয়েছেন এরূপ বিষয়ের সঙ্গে যদি উক্ত পরিশোধ বা অর্থ প্রেরণের কোনো সম্পর্ক থাকে।

খসড়ায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাধারণ বা বিশেষ অনুমোদন ছাড়া এবং প্রযোজ্য ফি পরিশোধ ছাড়া কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কোনো স্বর্ণ, অলংকার বা দামি পাথর বা বাংলাদেশি কারেন্সি নোট, ব্যাংক নোট বা ধাতব মুদ্রা বা বৈদেশিক মুদ্রা বাংলাদেশে আনয়ন অথবা বাংলাদেশ থেকে অন্য কোনো দেশে প্রেরণ করতে পারবে না। তবে বাংলাদেশের ভৌগলিক সীমারেখার বাইরে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে, কোনো জাহাজ বা বহনকারী যানবাহন থেকে বাংলাদেশের ভৌগলিক সীমার মধ্যে অবতরণ বা খালাস না করা হলে, উল্লেখিত দ্রব্যাদি বাংলাদেশের কোনো অঞ্চল বা স্থানে আনা হয়েছে বলে গণ্য হবে না। এছাড়া বাংলাদেশে স্বর্ণ-রৌপ্যের আমদানির আগে বা আমদানির সময় এর ব্যবহার বা ব্যবসায়ের ওপর সরকার প্রয়োজনে শর্তারোপ করতে পারবে।

খসড়া আইনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাধারণ বা বিশেষ অনুমতি ছাড়া কোনো ব্যক্তি কোনো সিকিউরিটিজ বাংলাদেশের বাইরে গ্রহণ করতে বা প্রেরণ করতে পারবেন না। বাংলাদেশের বাইরে নিবাসী কোনো ব্যক্তির অনুকূলে কোনো সিকিউরিটিজ হস্তান্তর বা সৃষ্টি বা সিকিউরিটিজের ওপর অর্জিত স্বার্থ হস্তান্তর করা যাবে না। তবে অনিবাসী কোনো ব্যক্তি কর্তৃক অর্জিত সিকিউরিটিজের মালিকানার প্রমাণ হিসাবে সিকিউরিটিজ সার্টিফিকেট বাংলাদেশের বাইরে নেওয়ার ক্ষেত্রে এ বিধান কোনো বাধা সৃষ্টি করবে না।

বাংলাদেশের কোনো রেজিস্ট্রার বা ডিপজিটরি থেকে কোনো সিকিউরিটিজ বাংলাদেশের বাইরের কোনো রেজিস্টারে বা ডিপজিটরিতে হস্তান্তর বা স্থানান্তর করা যাবে না এবং সিকিউরিটিজ ইস্যু, হস্তান্তর বা অন্য কোনো বিষয় সংক্রান্ত কোনো ক্ষেত্রেই সিকিউরিটিজ রেজিস্ট্রার বা ডিপজিটরি বা বইতে বিদেশি ঠিকানা লিপিবদ্ধ করা যাবে না, যাতে বাংলাদেশে নিবন্ধিত কোনো সিকিউরিটিজের সঙ্গে বিদেশে নিবন্ধিত সিকিউরিটিজের বিনিময় সহজতর হয়। তবে বিদেশি ঠিকানা প্রতিস্থাপন করে দেশি ঠিকানা লিপিবদ্ধ করা যাবে এবং বিদেশি ঠিকানা সম্পৃক্ত কোনো লেনদেনের অনুমতি এই ধারার অধীনে প্রদত্ত হলে সেই ঠিকানা লিপিবদ্ধ করা যাবে।

খসড়ায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন-এর অনুমোদন ছাড়া কোনো সিকিউরিটিজ ইস্যু বা হস্তান্তর বা লেনদেন কিংবা কোনো সিকিউরিটিজ বাংলাদেশের বাইরে কোনো এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত করা যাবে না বা বাংলাদেশের বাইরে কোনো ডিপজিটরিতে স্থানান্তর করা যাবে না। তবে বাংলাদেশের বাইরে কোনো এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত কোনো সিকিউরিটিজ হস্তান্তর, ধারণ ও তালিকাভুক্তিকরণে এ বিধানাবলি কার্যকর হবে না।

আইনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে খসড়ায় বলা হয়েছে, দেশের বাইরে পরিশোধ, বৈদেশিক মুদ্রায় চলতি ও মূলধনী হিসাবের লেনদেন, বৈদেশিক বিনিময় ও সিকিউরিটিজের লেনদেন এবং বৈদেশিক মুদ্রা, পণ্য, সেবা ও স্বর্ণ-রৌপ্যের আমদানি ও রপ্তানি সংক্রান্ত কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে এ আইন প্রণয়ন করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০