কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করা হলে ব্যবস্থা

প্রকাশিত: ৩:০৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৮, ২০২১

বিজনেস ফাইল ডেস্ক:
সারাদেশের মতো রাজধানী ঢাকায় কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করা হলে ফল ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। শীঘ্রই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে অভিযুক্তদের জরিমানাসহ জেল দেয়া হতে পারে। রমজানের চাহিদাকে পুঁজি করে হঠাৎ করে তরমুজের দাম দ্বিগুণ করা হয়েছে। আর এর পেছনে অসাধু ফল ব্যবসায়ীদের হাত রয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, এবারই প্রথম দেশে কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করার নতুন নিয়ম চালু করে ব্যবসায়ীরা। যদিও কৃষকের কাছ থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা শ’ (১০০) হিসেবে তরমুজ কিনে থাকেন। এতে করে ভালমানের এক শ’ তরমুজ কেনা হয় ৫ থেকে ৭ হাজার টাকায়। যা পরবর্তীতে কেজি হিসেবে বিক্রি করা হয়। ক্রেতাদের অভিযোগ পাইকারি পর্যায়ে ৮-১০ কেজি ওজনের একটি তরমুজ ৬০-৭০ টাকায় কেনা হলেও খুচরা পর্যায়ে তা সাড়ে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। রোজায় দ্বিগুণ দামে বিক্রি হচ্ছে তরমুজ।

এতে করে সাধারণ ক্রেতারা ঠকছেন। এমনকি কৃষকরাও লাভবান হচ্ছে না। শুধু পাইকারি ও ফড়িয়া ব্যবসায়ীরা লাভবান হচ্ছে। এ কারণে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে শীঘ্রই ঢাকা শহরের ফলের দোকানগুলোতে অভিযান পরিচালনা করা হবে। এ প্রসঙ্গে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক উর্ধতন কর্মকর্তা বলেন, দেশে কোনদিন ওজন করে তরমুজ বিক্রির কোন রেকর্ড নেই। এবার কেজি দরে তরমুজ বিক্রি করে দুই থেকে তিনগুণ দাম বাড়ানো হয়েছে। বিষয়টি মন্ত্রণালয়ের নজরে এসেছে। শীঘ্রই ভ্রাম্যমাণ আদালত এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিবে। তিনি বলেন, তরমুজ মৌসুমী ফল হলেও এখন সারাবছর এই ফলটি দেশে পাওয়া যাচ্ছে। অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের পাশাপাশি বিদেশী বিভিন্ন জাতের তরমুজ সারাবছর আমদানি হয়ে থাকে।